উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরী

প্রাথমিক পরিচয়ঃ

উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরী বাংলা সাহিত্যে এক নক্ষত্রের নাম। তিনি ছিলেন সাহিত্যিক সাংবাদিক ও চিত্রকর। তাকে সঙ্গীতও বলা হয়। এর জন্য কিশোরগঞ্জে রায় পরিবারের সুনাম পুরো উপমহাদেশে ছড়িয়ে যান। তার ছেলে সুকমার রায় ও তাকে ছাড়িয়ে যান। পরে তার নাতি ( সুকমার রায়ের ছেলে) সত্যাজিৎ রায় অস্কার বিজয়ের মাধ্যমে রায় পরিবারের সুনাম সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দেন। রায় পরিবারের তিনি প্রজন্মের তিন পুরুষই শিশু সাহিত্যর এক অনন্য নাম। উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরী এর সূত্রপাত করেন।

 

জন্ম ও বংশ পরিচয়ঃ-১

বিখ্যাত শিশু সাহিত্যিক উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরী ১৯৬৩ সালে ১০ মে ( তৎকালীন ময়মনসিংহ জেলা ) বর্তমান কিশোরগঞ্জের  কটিয়াদি থানার মসুয়া গ্রামে এক ধনী পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন। তার বাবার নাম শ্যামসুন্দর মুন্সী। ও মায়ের নাম জয়তারা। শ্যামসুন্দর মুন্সীর অপর নাম কালীনাথ চৌধরী। শ্যামসুন্দর মুন্সী ও জয়তারার ঘরে আসে ৮টি সন্তান। সরাদারঞ্জ, গিরিবালা, কামদারঞ্জন,( ? ) কুলদারঞ্জন, প্রমদারঞ্জন, ও মৃনালিনি। কাদারঞ্জন পরবর্তীতে উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরী হিসেবে আত্নপ্রকাশ করেন। তার বড় ভাই সরাদারঞ্জন ছিলেন একজন শিক্ষাবিদ।

 

জন্ম ও বংশ পরিচয় ২ –ঃ

কালীনাথ রায় ( শ্যামসুন্দর মুন্সী ) এক নিকট আত্নীয় হরি কিশোর চৌধরী বাস করতেন একই গ্রামে। তিনি ছিলেন এই গ্রামের এক প্রভাবশালী লোক। সম্পদের দিক দেয়েও শ্যামসুন্দর মুন্সীর চেয়ে অনেক এগিয়ে। তবে দুঃখের বিষয় এক দিক দিয়ে তিনি পিছিয়ে। শ্যামসুন্দর মুন্সীর ৮ সন্তান কিন্তু হরি কিশোর চৌধরীর কোন সন্তান ছিলনা। তাই হরি কিশোর চৌধরী শ্যামসুন্দর মুন্সীর কাছে একটি সন্তান দত্তক হিসেবে চান। আত্নীয় সম্পর্কর জন্য তিনি রাজি হয়। এবং তার ৫ বছরের ছেলে কামদারঞ্জনকে ( উপেন্দ্র কিশোর) নির্দাবী করে দিয়ে দেন। হরি কিশোর চৌধরী খুশি হয়ে উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরীর নামে তার সকল জমি লিখে দেন। এবং কামদারঞ্জন নাম পরিবর্তন করে নতুন নাম রাখেন উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরী। তবে পরবর্তীতে হরি কিশোর চৌধরীর ঘরে একটি ছেলে সন্তান জন্ম গ্রহণ করেন। তার নাম নরেন্দ্র কিশোর। পরে হরি কিশোর চৌধরী মারা যায়। উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরী কলকাতায় স্থায়ী ভাবে বসবাস করেন এবং নরেন্দ্র কিশোর তার বাবার জমিদারির ভার গ্রহণ করেন। তবে উল্লেখ্য যে  এই জমিদারিতে নরেন্দ্রর কোন অংশীদারী ছিল না। কারন হরি কিশোর চৌধরী উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরীর নামে তার সকল জমি লিখে দেন। কিন্তু পরে উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরী তার সম্পতির অর্ধেক তার ছোট ভাই নরেন্দ্র কিশোর এর নামে লিখে দেন। এবং বাকি অর্ধেক সম্পতি তিনি তাকেই দেখার দায়িত্ব দেন।

 

শৈশবঃ

উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরীর শৈশব কাটে প্রথম ৫ বছর নিজ পরিবারে। পরের সময়টা কাটে হরি কিশোর চৌধরীর বাড়িতে। পরবর্তীতে তার উইলকৃত নিজ বাড়িতে। তৎকালীন ময়মনসিংহে মধ্য দিয়ে প্রবাহিত ব্রহ্মপুত্র নদীতে। এই নদীর কূলেই ছিল মসূয়া গ্রাম। তিনি বড় হন এই নদী দেখে। তা ছাড়া তাদের মসূয়া গ্রামটি ছিল গাছ-পালা নদী-নালায় এক সুন্দর্যর অপরূপ নিলা ভূমি।। ব্রহ্মপুত্র নদীর কল কল দেউয়ের শব্দ ও রূপ নিয়ে তিনি বড় হন। চারদিকে ফসলের মাঠ তাকে করে প্রানবন্দ। এই ব্রহ্মপুত্র নদী ও গ্রাম তাকে সাহিত্যর প্রতি মন গড়তে সাহায্য করেন। বাবা হরি কিশোর চৌধরীর কাছে তিনি ছিলেন একটি হিরের টুকরা। তাই আদরে যত্নে তার কোন অভাব হয়নি। যখন যা চেয়েছেন তাই পেয়েছেন। তার পড়ালেখার প্রতি তারা বাবা হরি কিশোর চৌধরী ছিলেন অনেক আগ্রহী। তাকে ভর্তি করেন স্কুলে। তিনি গান বাজনার প্রতি ছিল আগ্রহী। যেখানে গান বাজনা ও সাংস্কৃতি অনুষ্টান হত সেখানেই তিনি অংশ গ্রহণ করতেন। তাই বলা যায় একজন সাহিত্যমনা মানুষের যে ধরনের পরিবেশের ধরকার উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরী তার পুরুটায় পেয়েছেন।

 

শিক্ষা জীবনঃ

উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরীর পড়ালেখার শুরু করেন তার নিজ বাড়িতে (হরি কিশোর চৌধরীর বাড়িতে ) । তার বাল্য শিক্ষার জন্য এক পণ্ডিত রাখা হয় তার নিজ বাড়িতে। এরপর তাকে ভর্তি করেন ময়মনসিংহের জেলা স্কুলে। ময়মনসিংহে এসে তিনি গগনচন্দ্র নামে এক ব্রাহ্মণ পণ্ডিতের সংস্পর্শে আসেন। তিনি ব্রাহ্মণ ধর্মের প্রতি আকৃষ্ট হন। ১৮৮০ সালে উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরী ময়মনসিংহের জেলা স্কুল থেকে এন্ট্রাস পাশ করেন। এরপর তাকে ভর্তি করেন কলকাতার প্রেসিডেন্সী কলেজে। এ কলেজ থেকে তিনি ১৮৮২ সালে ইন্টারমিডিয়েট পাশ করেন। এরপর তিনি ভর্তি হয় কলকাতার মেট্রোপলিটন কলেজে বি,এ ক্লাসে। ১৮৮৪ সালে তিনি বি,এ পাশ করেন। এরপর তিনি পড়ালেখার ইতি টানেন।

 

বিবাহ বন্ধন ও পারিবারিক জীবনঃ

উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরী কলকাতায় থাকার সময় শরীয়তপুরের লনসিং স্কুলের পণ্ডিত ( পরে কলকাতায় স্থানান্তরিত ) দ্বারকানাথ গঙ্গোপাধ্যয়ের বাসায় আসা যাওয়া করতেন। দ্বারকানাথ গঙ্গোপাধ্যয় ছিলেন একজন নারী শিক্ষার অগ্রপথিক। তার স্ত্রী বরিশালের মেয়ে কদম্বিনী দেবী ছিল ১ম ভারতীয় গ্রাজুয়েট মহিলা ডাক্তার। তাদের বাসায় যাওয়া আসা সুবাদে দ্বারকানাথ গঙ্গোপাধ্যয়ের বড় কন্যা বিধুমুখীর সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। ১৮৮৬ সালে উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরী পারিবারিক মত উপেক্ষা করে বিধুমুখীকে বিয়ে করে বাসায় নিয়ে আসেন। প্রথম দিকে তাদের বিয়ে মেনে না নিলেও পরে ছেলের কথা চিন্তা করে এই বিয়ে মেনে নেন। উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরী ও বিধুমুখীর ঘরে আসে ৬টি সন্তান। ৩ ছেলে ও ৩ মেয়ে। ছেলেরা হল সুকুমার রায়, সুবিনয় রায়, ও সুবিমল রায় ( মেয়ে ) সুখলতা রায়, পুন্যলতা চক্রবর্তী, ও শান্তিলতা রায়। তার বড় ছেলে সুকুমার রায় ছিল একজন বিখ্যাত শিশু সাহিত্যিক। তিনি প্রথম ভারতীয় হিসেবে F. R. P. S উপাধি পান। সুকুমার রায়ের ছেলে সত্যজিৎ রায়ও ছিল একজন শিশু সাহিত্যিক এবং ১ম বাঙ্গালী অস্কার বিজয়ী। তার ২য় ছেলে পত্রিকার সম্পাদনা করতেন। ছোট ছেলে সুবিনয় গল্প ও কবিতা লিখতেন। বড় মেয়ে ছিল গল্পকার, চিত্রকার ও বহু গানের রচয়িতা। ২য় কন্যা একজন শিশু সাহিত্যিক ও ছোট কন্যা অকালে মারা যান।

 

কর্ম জীবনঃ

উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরী নিজেই নিজের কর্মসংস্থান করেছিলেন। এই জন্য চাকরির জন্য কারো কাছে যেতে হয়নি। প্রেস ব্যবসা, ছবি আঁকা, সংবাদপত্র প্রকাশ, বই লেখা এই গুলোকে তিনি কর্ম হিসেবে বেঁচে নেন। উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরী ময়মনসিংহের জেলা  স্কুলে পড়ার সময় তিনি ছবি আঁকা শিখেন। কলকাতায় মেট্রোপলিটন কলেজে বি,এ  পাশ কারার পর তিনি ভিবিন্ন পত্র পত্রিকায় লেখতেন এবং ছবি আঁকতেন। ১৮৮৫ সালে তিনি নিজেই একটি প্রেস প্রতিষ্টা করেন। প্রেসের নাম দেয় ইউ রায় এ্যান্ড সন্স। প্রেসটির জন্য তিনি যন্ত্রপাতি আনেন ইংল্যান্ড থেকে। এ প্রেসে তিনি নিজের বই ও পত্রিকা ছাপাতেন। পাশাপাশি তিনি অন্যদের কাছথেকে ও অর্ডার নিতেন। তিনি নিজের বইয়ের ছবি নিজেই আঁকতেন। এবং তিনি অন্যদের বই, পত্রিকার ও পোস্টারের ছবি আঁকতেন। এতে তার ভালই আয় হত। তার প্রেসের মান ভাল তাই চারদিকে এর সুনাম ছড়িয়ে পড়ে। একসময় তার কাজের প্রেসার আরও বেড়ে যায়। এছাড়াও বই লেখা, পত্রিকার জন্য অনেক সময় দিতে হত। উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরীর ছেলে সুকুমার রায় ইংল্যান্ড থেকে ছবি আঁকা মুদ্রণ ও স্টুডিও পরিচালনার উপর প্রশিক্ষণ দিয়ে বাবার প্রেসে কাজ শুরু করে দেন। এরপর তাদের প্রেসের উন্নতি আরও বেড়ে যায়। উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরীর মৃত্যুর পর সুকুমার রায় প্রেসের ভার নেন।

 

সাংবাদিক জীবনঃ

উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরী বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় লেখালেখি করতেন। মেট্রোপলিটন কলেজে পড়ার সময় তিনি ‘ সখা” ও মুকুল পত্রিকায় লিখতেন। ১৯১৩ সালে তিনি নিজেই একটি পত্রিকা খুলেন। এর নাম দেন সন্দেশ। পত্রিকার সম্পাদনার ভারও নিলেন তিনি নিজেই। এ পত্রিকায় তার নিজের লেখার পাশাপাশি দেশের অন্যান্য লেখকদের লেখাও ছাপা হত। এ পত্রিকায় সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুর, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, বিজয় চন্দ্র, শিব নাথ শাস্রী, যোগেশ্চন্দ্র সহ বিখ্যাত লেখকেরা লেখা পাঠাতেন। এ ছাড়া তার পরিবারের সকলেই ছিল লেখক। তার পরিবারের সকলেই সাহিত্যর প্রতি এমনই আগ্রহ ছিল যে অন্য কেউ লেখা না পাঠালেও উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরীর পত্রিকা ছাপাতে কোন ধরনের সমস্যা হত না। কারন তার পরিবারের সকলে ছিল সাহিত্যমনা। তার নিজের প্রেসে তিনি সন্দেশ পত্রিকা ছাপাতেন। তিনি পত্রিকার ছবি নিজেই আঁকতেন। উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরী সাহিত্য , সাংবাদিকতা, চিত্র আঁকার পাশাপাশি তিনি সংগীত চর্চাও করতেন। তিনি বেহালা, ঢোল, সেতার, ও হারমনিয়াম বাজাতে পড়তেন। এক সময় তিনি বাদ্যযন্ত্র প্রস্তুতকারক ‘ ডোয়াকিন কোম্পানি’ একটি সঙ্গীত পত্রিকা প্রকাশ করেন। পত্রিকাটির নাম দেন ‘ সঙ্গীত শিক্ষা” এর সম্পাদনার দায়িত্ব তিনি নিজেই গ্রহণ করেন।

 

সাহিত্যিক জীবনঃ

উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরী শুধু একজন সুসাহিত্যিকই নয় তিনি সাহিত্য তৈরির কারিগর বটে। তিনি নিজে সাহিত্য চর্চা করতেন এবং পাশাপাশি তার পরিবারের সকলকে সাহিত্যমনা করে তুলেন। তিনি ছাত্র জীবন থেকেই সাহিত্য চর্চা করতেন। ছাত্র অবস্তায় তিনি প্রখ্যাত শিশু সাহিত্যিক প্রমদাচরন সেন প্রতিষ্টিত ‘ সখ’ পত্রিকায় লেখা পাটাতেন। ১৮৮৩ সালে তার প্রথম লেখা ‘ মাছি’ শিশুতোষ নিবন্দ সখ পত্রিকায় ছাপা হয়। এরপর তিনি নিয়মিত এই পত্রিকায় লেখা পাঠাতেন। পর মাকড়সা, ধূমপান, নিয়ম এবং অনিয়ম, গিলফর সাহেবের অদ্ভুত সমুদ্র যাত্রা ইত্যাদি অনেক গুলো লেখা প্রকাশ হয়। ১৯৮৩ সালে তিনি সন্দেশ পত্রিকা প্রকাশ করলে তার লেখা বেশিরভাগ এই পত্রিকায় প্রকাশ পায়। ১৮৯৪ সালে প্রকাশিত হয় তার বিখ্যাত গ্রন্থ ছেলেদের রামায়ন। এটি তার প্রথম প্রকাশিত বই। ১৯০৩ সালে প্রকাশিত হয় সেকালের কথা বইটি। এটি ছিল জীববিদ্যার উপর লেখা। ১৯০৯ সালে প্রকাশিত হয় ‘ ছেলেদের মহাভারত’। ১৯০৯ সালে প্রকাশিত হয় ‘মহাভারতের গল্প” গ্রন্থটি। এই দুটি পুরানিক কাহিনী। এই তিনটি গ্রন্থ তৎকালীন কিশোরদের মাঝে ব্যাপক সাড়া জাগান। ১৯১০ সালে প্রকাশিত হয় ‘ টুটুনির বই’ গল্পটি। এই  বইটি শিশু কিশোরদের নিয়ে লেখা। এটি শিশু সাহিত্যর ক্ষেত্রে তার এক অবদান। উনিশ শতক থেকে শুরু করে এখনও বইটি এটি একটি জনপ্রিয় বই। ১৯১১ সালে প্রকাশিত হয় ‘ ছোটদের রামায়ন’ বইটি প্রকাশের ৬ বছর পর প্রকাশিত হয় ‘ আরও গল্প’’ নামে আরেকটি গল্প বই। ১৯১৯ সালে প্রকাশিত হয় ‘ পুরানের গল্প’’ নামক বইটি। এই দুটি পুরান কাহিনী সম্বলিত। উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরী রচিত প্রায় সকল বই ছোটদের জন্য রচিত। সে সময় এই সকল বই শিশুদের মাঝে আলোড়ন সৃষ্টি করে।

 

মৃত্যুঃ

উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরী জীবনের শেষ সময়ে এসে ডায়াবেটিস রোগে আক্রান্ত হন। সে সময় এ রোগের তেমন চিকিৎসা ছিলনা। তাই তিনি এই রোগে অনেক ভেঙ্গে পড়েন। পড়ে ১৯১৫ সালে ২০ই ডিসেম্বর তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *