বিশ্বের ৫ টি বালিহীন সমুদ্র সৈকত

খাদিজাতুল কুবরা: সমুদ্রতীর শব্দটি মাথায় এলে আমাদের চোখের দৃশ্যপটে একটা পরিচিত ছবি ভেসে উঠে। সম্ভবত আমাদের দেশের ক্ষেত্রে প্রত্যেকের মনে পড়ে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের নাম টি। সকালের চির চিরে রোদে চিকচিকে সাদা বালি আর আকাশের প্রতিবিম্বের মতো নীল জল। এর বাইরে আমরা একদম ই কল্পনা করতে পারিনা।

অথচ রহস্যময় এ পৃথিবীতে কত শত অজানা ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে সে খবর আমরা কজন জানি?

আচ্ছা একবার ভাবুন তো এমন সমুদ্রতীরের কথা যেটিতে আকাশের ছায়ার মতো স্বচ্ছ জল আছে ঠিক ই কিন্তু সেই চিকচিকে বালি নেই। ভারি অদ্ভুত শোনায়! অথচ পৃথিবী বিখ্যাত এমন কয়েকটি সমুদ্র তীর আছে যে তীরে কি না বালি নয় আছে অন্যকিছু। চলুন আজ জেনে নেই সে অদ্ভুত সুন্দর কতক অন্যরকম সমুদ্রতীর সম্পর্কে।

১. শেল বিচ, অস্ট্রেলিয়া

অস্ট্রেলিয়ার পশ্চিম দিক জুড়ে অবস্থিত এই সমুদ্র সৈকত টি পৃথিবী বিখ্যাত এর ভিন্ন রূপের কারণে। এর সমুদ্র তীরবর্তী স্থানটি জুড়ে বালির পরিবর্তে আছে অসংখ্য ঝিনুকের খোল। যেকারণে সমস্ত তীরবর্তী স্থানটুকু হালকা গোলাপি আভা ধারণ করে থাকে। সমুদ্রের তীব্র নোনা জল এই ঝিনুকগুলো কে বাঁচিয়ে রাখে এবং কোনোভাবে নষ্ট হয়ে যাওয়া থেকে রক্ষা করে। এ যেনো প্রকৃতির একে অন্যকে রক্ষা করার এক দারুণ অভিপ্রায়।

২. ডারডেল ডোর বিচ, ডরসেট, ইংল্যান্ড

প্রথম চোখের দেখায় ইংল্যান্ডের এই ডারডেল সমুদ্র সৈকত টি দেখে এক ধরনের ভ্রম তৈরি হয়। মনে হয় যেনো এটি অন্য সব সমুদ্র তীরের মতোই বালিময়। অথচ অল্প খানিক পর ই ভুল ভাঙে যে তীরটি বালির কণা দিয়ে নয় এটি বিস্তৃত ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র নুড়িপাথর জুড়ে। এই সমুদ্র সৈকতের অত্যাশ্চর্য যে দিকটির জন্যে এই ডারডেল ডোর বিচটি বিখ্যাত সেটি হলো পানির উপরে ভাসমান প্রাকৃতিক ভাবে চুনাপাথরের তৈরি তোরণদ্বার।

৩. বোলিং বল বিচ, ক্যালিফোর্নিয়া

যদিও এই সমুদ্র তীরবর্তী স্থান টি একদম ই বালি শূন্য তা নয় তবু এর বল আকৃতির বৃহৎ নুড়িপাথরের আধিক্য থাকার কারণে এর নামকরণ হয়েছে বোলিং বল বিচ। যেটি কি না ভ্রমণপ্রিয় মানুষদের একমাত্র আকর্ষণ। হাজার বছরের পুরোনো মাডস্টোন ক্ষয়ে জন্ম হওয়া এই প্রাকৃতিক গোলাকার নুড়িগুলো এই স্থানটি কে দর্শনীয় স্থান করে তুলেছে।

৪. স্টিনিভা বিচ, ক্রোয়েশিয়া

ক্রোয়েশিয়া পৃথিবীর অন্যতম নান্দনিক সৌন্দর্যে পরিপূর্ণ দেশগুলোর একটি। এর সৌন্দর্য রক্ষার্থে সমান দায়িত্ব পালন করে যেন এর অপরূপ সুন্দর সমুদ্র সৈকত গুলো। এর মধ্যে অন্যতম স্টিনিভা বীচ। এর তীরবর্তী স্থান টি বালির পরিবর্তে নরম ছোট নুড়ি পাথরে বিস্তৃত। সমুদ্র পিপাসু ভ্রমণপ্রিয়দের এ স্থানটি থাকে তাদের বাকেট লিস্টের প্রথম সারি তে।

৫. গ্লাসবিচ, ক্যালিফোর্নিয়া

আর্বজনা থেকেও কদাচিত জন্ম দিতে পারে সৌন্দর্যের লীলাভূমির এ যেন গোবরে পদ্মফুল প্রবাদের এক দারুণ উদাহরণ। উনবিংশ শতাব্দীর শেষদিকে ক্যালিফোর্নিয়ার এই ফোর্ট ব্রাগ অঞ্চলটি তে এর বসবাসরত মানুষজন ল্যান্ডফিল হিসেবে ব্যবহার করতো। যেখানে জমা হতো সব আর্বজনার স্তূপ। কালের বিবর্তনে প্রাকৃতিক মহিমায় এর অসংখ্য বর্জ্য সমুদ্রের জলে দ্রবীভূত হয়ে এক দারুণ স্বচ্ছ কাচের মতো বালুকণা তৈরি করেছে যেটি এখন অন্যতম সমুদ্র তীর হিসেবে বিখ্যাত।

 

বিঃদ্রঃ বাংলাকোষ কোনো সংবাদপত্র নয়, এটি মূলত একটি আর্কাইভ। বাংলাকোষ এ প্রকাশিত সকল তথ্য কপিরাইট এর অন্তর্ভুক্ত। সুতরাং কোনো পূর্বানুমতি ছাড়া বাংলাকোষের কোনো তথ্য ব্যবহার করা যাবে না। তবে অব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলো সূত্রসহ ব্যবহার করতে পারবে।